কোরআনে মুমিনদের জন্য ২৫ নির্দেশনা

  বিশেষ প্রতিনিধি    26-02-2024    201
কোরআনে মুমিনদের জন্য ২৫ নির্দেশনা

কোরআনে মুমিনদের জন্য ২৫ নির্দেশনা পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহ তাআলা মুমিনদের সম্বোধন করে নানা প্রেক্ষাপটে বিভিন্ন আদেশ ও উপদেশ প্রদান করেছেন। এমন আয়াতের সংখ্যা ৮৮ বা ৮৯। নিচে সেসব আদেশ ও উপদেশ থেকে ২৫টি আদেশ-উপদেশ তুলে ধরা হলো—

১. হে মুমিনরা! ইসলামের মধ্যে পূর্ণভাবে প্রবেশ করো এবং শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ করে চোলো না, নিশ্চয়ই সে তোমাদের প্রকাশ্য শত্রু। (সুরা : বাকারাহ, আয়াত : ২০৮)

২. হে মুমিনরা! আমি তোমাদের যে রিজিক দিয়েছি তা থেকে ব্যয় করো, সেদিন আসার আগে, যেদিন থাকবে না কোনো বেচাকেনা, না কোনো বন্ধুত্ব এবং না কোনো সুপারিশ। আর কাফিররাই জালিম। (সুরা : বাকারাহ, আয়াত : ২৫৪)

৩. হে মুমিনরা! তোমরা খোঁটা ও কষ্ট দেওয়ার মাধ্যমে তোমাদের সদকা বাতিল কোরো না। ওই ব্যক্তির মতো, যে তার সম্পদ ব্যয় করে লোক-দেখানোর উদ্দেশ্যে এবং বিশ্বাস করে না আল্লাহ ও শেষ দিনের প্রতি। অতএব, তার উপমা এমন একটি মসৃণ পাথর, যার ওপর আছে মাটি।অতঃপর তাতে প্রবল বৃষ্টি পড়ল, ফলে তাকে একেবারে পরিষ্কার করে ফেলল। তারা যা অর্জন করেছে তার মাধ্যমে তারা কোনো কিছু করার ক্ষমতা রাখে না। আর আল্লাহ কাফির জাতিকে হিদায়াত দেন না। (সুরা : বাকারাহ, আয়াত : ২৬৪)

৪. হে মুমিনরা! তোমরা আল্লাহকে ভয় করো—যথাযথ ভয়। আর তোমরা মুসলমান হওয়া ছাড়া মারা যেয়ো না। (সুরা : আলে ইমরান, আয়াত : ১০২)

৫. হে মুমিনরা! তোমরা সুদ খেয়ো না—ক্রমবর্ধিতভাবে, আল্লাহকে ভয় করো, যাতে তোমরা সফল হতে পার। (সুরা : আলে ইমরান, আয়াত : ১৩০)

৬. হে মুমিনরা! ধৈর্য অবলম্বন করো, দৃঢ়তা প্রদর্শন করো, নিজেদের প্রতিরক্ষাকল্পে পারস্পরিক বন্ধন মজবুত করো এবং আল্লাহকে ভয় করো, যাতে তোমরা সফল হতে পারো। (সুরা : আলে ইমরান, আয়াত : ২০০)

৭. হে মুমিনরা! তোমরা পরস্পরের মধ্যে তোমাদের ধন-সম্পদ অন্যায়ভাবে খেয়ো না, তবে পারস্পরিক সম্মতিতে ব্যবসার মাধ্যমে হলে ভিন্ন কথা। আর তোমরা নিজেরা নিজেদের হত্যা কোরো না।নিশ্চয়ই আল্লাহ তোমাদের ব্যাপারে পরম দয়ালু। (সুরা : নিসা, আয়াত : ২৯)

৮. হে মুমিনরা! তোমরা তোমাদের সতর্কতা অবলম্বন করো। অতঃপর ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র দল হয়ে বেরিয়ে পড়ো অথবা একসঙ্গে বের হও। (সুরা : নিসা, আয়াত : ৭১)

৯. হে মুমিনরা! আল্লাহকে ভয় করো এবং তাঁর নৈকট্যের অনুসন্ধান করো, আর তাঁর রাস্তায় জিহাদ করো, যাতে তোমরা সফল হও। (সুরা : মায়িদা, আয়াত : ৩৫)

১০. হে মুমিনরা! ইহুদি ও নাসারাদের তোমরা বন্ধুরূপে গ্রহণ কোরো না। তারা একে অপরের বন্ধু। আর তোমাদের মধ্যে যে তাদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করবে, সে নিশ্চয়ই তাদেরই একজন। নিশ্চয় আল্লাহ অত্যাচারী জাতিকে হিদায়াত দেন না। (সুরা : মায়িদা, আয়াত : ৫১)

১১. হে মুমিনরা! আল্লাহ যেসব পবিত্র বস্তু তোমাদের জন্য হালাল করেছেন, তোমরা তা হারাম কোরো না এবং তোমরা সীমা লঙ্ঘন কোরো না। নিশ্চয় আল্লাহ সীমা লঙ্ঘনকারীদের পছন্দ করেন না। (সুরা : মায়িদা, আয়াত : ৮৭)

১২. হে মুমিনরা! নিশ্চয় মদ, জুয়া, প্রতিমা-বেদি ও ভাগ্যনির্ধারক তীরসমূহ তো নাপাক শয়তানের কর্ম। সুতরাং তোমরা তা পরিহার করো, যাতে তোমরা সফলকাম হও। (সুরা : মায়িদা, আয়াত : ৯০)

১৩. হে মুমিনরা! তোমাদের ওপর তোমাদের নিজেদের দায়িত্ব। যদি তোমরা সঠিক পথে থাকো, তাহলে যে পথভ্রষ্ট হয়েছে সে তোমাদের ক্ষতি করতে পারবে না। আল্লাহর দিকেই তোমাদের সবার প্রত্যাবর্তন; তখন তিনি তোমরা যা আমল করতে তা তোমাদের জানিয়ে দেবেন। (সুরা : মায়িদা, আয়াত : ১০৫)

১৪. হে মুমিনরা! আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের আনুগত্য করো এবং আদেশ শোনার পর তা অমান্য কোরো না। (সুরা : আনফাল, আয়াত : ২০)

১৫. হে মুমিনরা! যদি তোমরা আল্লাহকে ভয় করো, তাহলে তিনি তোমাদের ভালো ও মন্দের মধ্যে পার্থক্য করার শক্তি প্রদান করবেন, তোমাদের থেকে তোমাদের পাপসমূহ দূর করবেন এবং তোমাদেরকে ক্ষমা করবেন। আর আল্লাহ মহা অনুগ্রহশীল। (সুরা : আনফাল, আয়াত : ২৯)

১৬. হে মুমিনরা! তোমরা জেনেবুঝে আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা কোরো না, আর যে বিষয়ে তোমরা আমানতপ্রাপ্ত হয়েছ তাতেও বিশ্বাস ভঙ্গ কোরো না। (সুরা : আনফাল, আয়াত : ২৭)

১৭. হে মুমিনরা! তোমরা রুকু করো, সিজদা করো, তোমাদের রবের ইবাদত করো এবং ভালো কাজ করো, আশা করা যায় তোমরা সফল হতে পারবে। (সুরা : হজ, আয়াত : ৭৭)

১৮. হে মুমিনরা! তোমরা নিজেদের গৃহ ছাড়া অন্যের গৃহে প্রবেশ কোরো না—অনুমতি প্রার্থনা এবং গৃহবাসীদের সালাম দেওয়া ছাড়া। এটাই তোমাদের জন্য কল্যাণকর, যাতে তোমরা উপদেশ লাভ করো। (সুরা : নুর, আয়াত : ২৭)

১৯. হে মুমিনরা! তোমরা আল্লাহকে বেশি পরিমাণে স্মরণ করো। (সুরা : আহজাব, আয়াত : ৪১)

২০. হে মুমিনরা, তোমরা আল্লাহর আনুগত্য করো এবং রাসুলের আনুগত্য করো। আর তোমরা তোমাদের আমলসমূহ বিনষ্ট কোরো না। (সুরা : মুহাম্মদ আয়াত : ৩৩)

২১. হে মুমিনরা! তোমরা বেশি অনুমান থেকে দূরে থাকো। নিশ্চয়ই কোনো কোনো অনুমান তো পাপ। আর তোমরা গোপন বিষয় অনুসন্ধান কোরো না এবং একে অপরের গিবত কোরো না। তোমাদের মধ্যে কি কেউ তার মৃত ভাইয়ের গোশত খেতে পছন্দ করবে? তোমরা তো তা অপছন্দই করে থাকো। আর তোমরা আল্লাহকে ভয় করো। নিশ্চয় আল্লাহ অধিক তাওবা কবুলকারী, অসীম দয়ালু। (সুরা : হুজুরাত, আয়াত : ১২)

২২. হে মুমিনরা! তোমাদের যখন বলা হয়, মজলিসে স্থান করে দাও, তখন তোমরা স্থান করে দেবে। আল্লাহ তোমাদের জন্য স্থান করে দেবেন। আর যখন তোমাদেরকে বলা হয়, তোমরা উঠে যাও, তখন তোমরা উঠে যাবে। তোমাদের মধ্যে যারা ঈমান এনেছে এবং যাদেরকে জ্ঞান দান করা হয়েছে আল্লাহ তাদের মর্যাদায় সমুন্নত করবেন। আর তোমরা যা করো আল্লাহ সে সম্পর্কে সম্যক অবহিত। (সুরা : মুজাদালা, আয়াত : ১১)

২৩. হে মুমিনরা! যখন জুমার দিন সালাতের জন্য আহ্বান করা হয়, তখন তোমরা আল্লাহর স্মরণের দিকে ধাবিত হও। আর বেচাকেনা বর্জন করো। এটাই তোমাদের জন্য সর্বোত্তম, যদি তোমরা জানতে। (সুরা : জুমুআ, আয়াত : ৯)

২৪. হে মুমিনরা, তোমাদের ধন-সম্পদ ও সন্তান-সন্ততি যেন তোমাদেরকে আল্লাহর স্মরণ থেকে উদাসীন না করে। আর যারা এরূপ করে তারাই তো ক্ষতিগ্রস্ত। (সুরা : মুনাফিকুন, আয়াত : ৯)

২৫. হে মুমিনরা, তোমাদের স্বামী-স্ত্রী ও সন্তান-সন্ততিদের কেউ কেউ তোমাদের দুশমন। অতএব, তোমরা তাদের ব্যাপারে সতর্কতা অবলম্বন করো। আর যদি তোমরা মার্জনা করো, এড়িয়ে যাও এবং মাফ করে দাও, তবে নিশ্চয়ই আল্লাহ পরম ক্ষমাশীল, অসীম দয়ালু। (সুরা : তাগাবুন, আয়াত : ১৪)

ধর্ম ও জীবন-এর আরও খবর